আরও ১০-১৫ জিম্মির মুক্তি নিয়ে হামাসের সঙ্গে আলোচনায় কাতার-যুক্তরাষ্ট্র


Md Firoj প্রকাশের সময় : নভেম্বর ৯, ২০২৩, ৮:৩৪ পূর্বাহ্ন /
আরও ১০-১৫ জিম্মির মুক্তি নিয়ে হামাসের সঙ্গে আলোচনায় কাতার-যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাসের আটক করা ইসরায়েলি বন্দিদের মধ্য থেকে ১০ থেকে ১৫ জন বন্দির মুক্তির বিনিময়ে গাজায় তিনদিনের যুদ্ধবিরতি হতে পারে। এ বিষয়ে কাতারের মধ্যস্থতায় ও যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতায় ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে আলোচনা চলছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সূত্রের বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার কাতারিভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা এই খবর জানিয়েছে।

ঠিক কতজন বন্দির মুক্তির বিনিময়ে তিনদিনে যুদ্ধবিরতি হতে পারে তা এখনও সঠিক বলা যাচ্ছে না। তবে প্রাথমিকভাবে বলা হচ্ছে, ১০ থেকে ১৫ জনের মুক্তির বিনিময়ে গাজায় স্বল্প মেয়াদে এ যুদ্ধবিরতি হতে পারে।

আল-জাজিরা বলছে, নাম গোপন রাখার শর্তে একটি সূত্র রয়টার্সকে জানিয়েছে, আলোচনার ‘এই পর্যায়ে বন্দিদের সঠিক সংখ্যা এখনও স্পষ্ট নয়।’ তবে বন্দিদের মধ্যে আপাতত ১০ থেকে ১৫ জন মুক্তি পেতে পারে।

সূত্রটি আরও জানিয়েছে, আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে সম্ভবত মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএর পরিচালক বিল বার্নস অংশ নিয়েছেন। মুক্তির শর্ত পূরণ করলেই গাজায় সাময়িক যুদ্ধ বিরতিতে রাজি হতে পারে ইসরায়েল।

হামাসের ঘনিষ্ঠ একটি সূত্রের বরাত দিয়ে এএফপি বলছে, ‘এই আলোচনা মূলত ‘তিন দিনের মানবিক বিরতির বিনিময়ে ১২ বন্দির মুক্তিকে কেন্দ্র করে চলছে। যাদের মধ্যে অর্ধেক বন্দিই আমেরিকান।’

আল-জাজিরার সাংবাদিক অ্যালান ফিশার জানিয়েছেন, ‘বৈঠকে অনেক আলাপ-আলোচনা হচ্ছে। তবে আপনাকে এটি মনে রাখতে হবে যে বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বারবার বলেছেন, সমস্ত বন্দিদের মুক্তি না দেওয়া পর্যন্ত কোন যুদ্ধবিরতি হবে না।’

হামাসের হাতে আনুমানিক ২৪০ বন্দি রয়েছে। তাদের মুক্তি বিষয়ক আলোচনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে কাতার। সম্প্রতি চার বন্দিকে হস্তান্তরের বিষয়েও তাদের ভূমিকা রয়েছে।

গত ৭ অক্টোবর ভোরে ইসরায়েলের দক্ষিণাঞ্চলে আকস্মিক ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়ে এক হাজার ৪০০ জনকে হত্যা করে সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাস। এছাড়াও প্রায় ২৫০ জনকে গাজায় ধরে নিয়ে যায় তারা। এরমধ্যে এখন পর্যন্ত মাত্র ৪ জনকে মুক্তি দিয়েছে হামাস যোদ্ধারা।