মার্কিন নির্বাচনের আগে ইউক্রেনে শান্তি স্থাপন করবেন না পুতিন


Md Firoj প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২৯, ২০২৩, ১২:৫৪ অপরাহ্ন /
মার্কিন নির্বাচনের আগে ইউক্রেনে শান্তি স্থাপন করবেন না পুতিন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

২০২৪ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফলাফল না জেনে ইউক্রেনে শান্তি স্থাপন করবেন না রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) এই মন্তব্য করেছেন। আগামী বছরের নভেম্বর মাসের নির্বাচনে দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বিজয়ী হতে পারেন এমন উদ্বেগের মধ্যে এই মন্তব্য করলেন তিনি। এক প্রতিবেদনে এই খবর প্রকাশ করেছে ব্রিটিশ বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

রয়টার্স বলছে, ২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবকান দলের প্রার্থী হওয়ার লড়াইয়ে এগিয়ে রয়েছেন ট্রাম্প। চলমান ইউক্রেন যুদ্ধে কিয়েভের জন্য আমেরিকানদের সমর্থনের তীব্র সমালোচনা করেছেন ট্রাম্প। মনে করা হচ্ছে, পুনরায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে ইউক্রেন যুদ্ধে কিয়েভের জন্য পশ্চিমাদের সমর্থনকে তুলে নেবেন তিনি।

মঙ্গলবার ব্রাসেলসে ন্যাটো পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকের পর সাংবাদিকদের দেওয়া এক ব্রিফিংয়ে ওই কর্মকর্তা বলেন, ইউক্রেনের প্রতি ন্যাটো জোটের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করার পর আগামী বছরে একটি শান্তি চুক্তির কোনও সম্ভাবনা নেই।

তিনি আরও বলেন ‘আমার মনে হচ্ছে আমাদের নির্বাচনের ফলাফল জানার আগে কোনও প্রকার শান্তি স্থাপন করবেন না পুতিন।’

এটি তার ব্যক্তিগত মতামত নাকি মার্কিন সরকারের দৃষ্টিভঙ্গি জানতে চাইলে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, বেশিরভাগই মানুষ এমনটাই মনে করেন।

২০২৪ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট কে হবেন—এ নিয়ে নভেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে একটি জরিপ করে রয়টার্স। এই জরিপে প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে ডোনাল্ড ট্রাম্প ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে রাখা হয়। এতে উত্তরদাতাদের উভয়ের মধ্যে প্রেসিডেন্ট বাছাই করতে বলা হয়।

জরিপের ফলাফল অনুসারে, বাইডেনকে সমর্থন করেছিল জরিপে অংশ নেওয়া ৪৯ শতাংশ মানুষ আর ট্রাম্পকে ৫১ শতাংশ।

২০২২ সালে ইউক্রেনে রাশিয়া পূর্ণমাত্রায় আগ্রাসন চালানোর পর থেকে কিয়েভকে ব্যাপক সামরিক এবং অন্যান্য সহায়তা দিয়ে আসছেন ডেমোক্র্যাট নেতা বাইডেন। তবে ইউক্রেনের জন্য প্রস্তাবিত অতিরিক্ত তহবিল রিপাবলিকান-নিয়ন্ত্রিত প্রতিনিধি পরিষদ আটকে রেখেছে।

এদিকে, চলতি মাসের শুরুতে ট্রাম্পকে ইউক্রেন সংঘাত পরিস্থিতি নিজ চোখে দেখে যাওয়ার আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি।

এর আগে, ট্রাম্প বলেছিলেন, পুনরায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে ২৪ ঘন্টার মধ্যে ইউক্রেন যুদ্ধ শেষ করতে পারেন তিনি।