নিউজিল্যান্ডকে উড়িয়ে বাংলাদেশের ইতিহাস


Md Firoj প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ২৩, ২০২৩, ১১:০৭ পূর্বাহ্ন /
নিউজিল্যান্ডকে উড়িয়ে বাংলাদেশের ইতিহাস

স্পোর্টস ডেস্ক

তৃতীয় ওয়ানডের সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ ১৫.১ ওভারে ৯৯/১ (শান্ত ৫১*, লিটন ১*, এনামুল ৩৭, সৌম্য ৪ রি/হা,)

নিউজিল্যান্ড ৩১.৪ ওভারে ৯৮/১০ (ডাফি ১*, ও’রোর্ক ১, অশোক ১০, মিলনে ৪, ক্লার্কসন ১৬, ব্লান্ডেল ৪, ইয়াং ২৬, ল্যাথাম ২১, নিকোলস ১, রাচিন ১২)

ম্যাচসেরা: তানজিম হাসান সাকিব (৩/১৪)

সিরিজ সেরা: উইল ইয়াং (২২০ রান)

ফল: বাংলাদেশ জয়ী ৯ উইকেটে।

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে টানা ১৮ ওয়ানডে হারের পর অবশেষে জয়ের দেখা পেলো বাংলাদেশ। ২০৯ বল হাতে রেখে ৯ উইকেটে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়েছে তারা। ১৬তম ওভারের প্রথম বলে দুই রান নিয়ে নাজমুল হোসেন শান্ত ফিফটি করেন এবং দলও লক্ষ্যে পৌঁছে যায়। ৪২ বলে ৮ চারে ৫১ রানে অপরাজিত ছিলেন বাংলাদেশের অধিনায়ক। তার আগে এনামুল হক বিজয় ৩৭ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলেন।

নেপিয়ারে তৃতীয় ওয়ানডেতে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আধিপত্য বিস্তার করে খেলেছে বাংলাদেশ। নিউজিল্যান্ডকে খুঁজেই পাওয়া যায়নি। তানজিম হাসান সাকিব পাওয়ার প্লেতে ২ উইকেট নিয়ে দারুণ শুরু এনে দেন। দ্বিতীয় স্পেলে ফিরে আরেকটি উইকেট নেন। তিন উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরাও হয়েছেন এই ডানহাতি পেসার।

শুধু তানজিম নয়, শরিফুল ইসলাম ও সৌম সরকার বল হাতে নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিং অর্ডার ধসিয়ে দেন। তিনজনই তিনটি করে উইকেট নেন। তাতে ওয়ানডেতে বাংলাদেশের বিপক্ষে সর্বনিম্ন ৯৮ রানে অলআউট কিউইরা। ছোট লক্ষ্যে নেমে সৌম্যর চোখে কিছু একটা গেলে বিপাকে পড়েন। কয়েকবার পানির ঝাপটা দেন। তার চোখে ড্রপও দেন ফিজিও। কিন্তু রিটায়ার্ড হার্ট হতে হয় আগের ম্যাচে ১৬৯ রান করা সৌম্য। তবে বিজয়-শান্তর ব্যাটে সহজ জয় নিশ্চিত হয়।

এর আগে গত বছর নিউজিল্যান্ডের মাটিতে প্রথম জয়ের স্বাদ পায় বাংলাদেশ, সেটা টেস্টে। তারপর নিজ দেশে প্রথমবার কিউইদের টেস্টে হারানোর কীর্তি গড়ে তারা, সেই ম্যাচে নেতৃত্বে ছিলেন শান্ত। এবার তার নেতৃত্বে তাসমান পাড়ের দেশে আরেকটি ইতিহাস রচনা করলো বাংলাদেশ। যা ২-১ এ সিরিজ হারের দুঃখ একেবারে ভুলিয়ে দিলো।

বিজয় আউট

লক্ষ্য থেকে ১৫ রান দূরে থাকতে বিদায় নিলেন এনামুল হক বিজয়। উইলিয়াম ও’রোর্কের বাউন্সারে পেছনে টম ব্লান্ডেলের ক্যাচ হন বাংলাদেশি ওপেনার। ৩৭ রান করেন তিনি ৩৫ বল খেলে, ছিল সাতটি চার।

শান্তর টানা চার বাউন্ডারি

প্রথম ১০ ওভারে ৫৭ রান করে বাংলাদেশ। ১১ ওভার শেষে স্কোর ৭৪। উইলিয়াম ও’রোর্কের প্রথম চার বলে বাউন্ডারি মারেন নাজমুল হোসেন শান্ত। তাতে জয়ের পথে ছুটছে সফরকারীরা।

পাওয়ার প্লেতে ৫৭ রান বাংলাদেশের

দশম ওভারে ভাঙতে বসেছিল নাজমুল হোসেন শান্ত ও এনামুল হক বিজয়ের জুটি। দ্বিতীয় বলে এক্সট্রা কভারে শট খেলেন বিজয়। ক্রিজ ছেড়ে অনেকখানি বেরিয়ে আসেন নন স্ট্রাইক ব্যাটার শান্ত। নিউজিল্যান্ড ফিল্ডার ডাইভ দিয়ে বল থ্রো করেন। বল স্টাম্পে লাগলে নিশ্চিতভাবে প্যাভিলিয়নে যেতে হতো বাংলাদেশ অধিনায়ককে। ওই ওভারে তিন চার মারেন বিজয়। পাওয়ার প্লেতে বিনা উইকেটে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৫৭ রান।

বিজয়-শান্তর ব্যাটে লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ

সৌম্য সরকার রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে মাঠ ছাড়ার পর জুটি গড়েছেন এনামুল হক বিজয় ও নাজমুল হোসেন শান্ত। বল বুঝে চার মেরে রান বাড়িয়ে নিচ্ছেন। দুজনের ব্যাটে নির্বিঘ্নে লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। লক্ষ্য ৯৯ রানের।

রিটায়ার্ড হার্ট সৌম্য

৯৯ রানের লক্ষ্যে নেমে সতর্ক ব্যাটিং করছিলেন সৌম্য সরকার। অ্যাডাম মিলনে ও জ্যাকব ডাফির প্রথম দুই ওভারের পুরোটা খেলে মাত্র ৩ রান করেন তিনি। মাঝে চোখের সমস্যায় ভুগতে দেখা যায় তাকে। পঞ্চম ওভারে ফিজিওকে মাঠে ডেকে চোখে ড্রপ দেন। তারপর ভালোবোধ না করায় মাঠ ছেড়ে যান। ১৬ বলে ৪ রান করে রিটায়ার্ড হার্ট হয়েছেন সৌম্য।

তৃতীয় ওভারে স্ট্রাইকে যান এনামুল হক বিজয়। দ্বিতীয় বলে চার মেরে রানের খাতা খোলেন তিনি। তার সঙ্গে ক্রিজে আছেন নাজমুল হোসেন শান্ত।

নিউজিল্যান্ডকে সর্বনিম্ন রানে গুটিয়ে দিলো বাংলাদেশ

মোস্তাফিজুর রহমানের বল উইলিয়াম ও’রোর্কের স্টাম্পে আঘাত করলো। নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিং ইউনিটের ভগ্নদশার শেষ হলো। নেপিয়ারে মাত্র ৯৮ রানে অলআউট স্বাগতিকরা। ওয়ানডেতে বাংলাদেশের বিপক্ষে নিউজিল্যান্ড সর্বনিম্ন রান করলো।

তানজিম হাসান সাকিব শুরুতেই আঘাত করেন। ২২ রানে টপ অর্ডারের ২ উইকেট তুলে নেন তিনি। প্রথম ৫ ওভারে মাত্র ৯ রান দেন। টম ল্যাথাম ও উইল ইয়াং প্রতিরোধ গড়েছিলেন। সেই প্রতিরোধ শক্ত হতে দেননি শরিফুল ইসলাম। দ্বিতীয় স্পেলে বল হাতে নিয়ে তিন ওভারে ৩ ব্যাটারকে ফেরান। তারপর সৌম্য সরকার দেখান জাদুকরী বোলিং। তিনিও টানা ৩ ওভারে তিন উইকেট তুলে নেন। ৩১.৪ ওভারে তারা অলআউট হয় মোস্তাফিজের শেষ আঘাতে।

তানজিম ৭ ওভারে ১৪ রান দিয়ে ৩ উইকেট নিয়ে সেরা বোলার। ৬ ওভারে ১৮ রান দিয়ে সৌম্যও সমান উইকেট পান। শরিফুল ৭ ওভারে ২২ রান দিয়ে শিকার করেছেন তিন উইকেট।

সৌম্যর তৃতীয় শিকার অশোক

মোস্তাফিজুর রহমানের ওভারে দুটি চার মেরেছিলেন আদিত্য অশোক। তবে সৌম্য সরকার বল হাতে নিয়ে তাকে তৃতীয় শিকার বানালেন। ১২ বলে ১০ রানে মুশফিকুর রহিমের ক্যাচ হন অশোক। ৯৭ রানে ৯ উইকেট হারালো নিউজিল্যান্ড।

সৌম্যর দ্বিতীয় আঘাত

চোখের পলকে দ্বিতীয় উইকেট নিলেন সৌম্য সরকার। টানা দ্বিতীয় ওভারে জোড়া আঘাত হানলেন তিনি। জশ ক্লার্কসনের মতো একইভাবে অ্যাডাম মিলনেকে ৪ রানে বোল্ড করেন এই পেসার। ৮৬ রানে ৮ উইকেট নেই নিউজিল্যান্ডের।

সৌম্যর বলে বোল্ড ক্লার্কসন

১২ রানের ব্যবধানে নিউজিল্যান্ড চার উইকেট হারানোর পর জশ ক্লার্কসন ও অ্যাডাম মিলনে প্রতিরোধ গড়েছিলেন। ১৫ রান তুলে সেটাও ভেঙে গেলো সৌম্য সরকারের বলে। ক্লার্কসনকে ১৬ রানে বোল্ড করেছেন তিনি। ৮৫ রানে ৭ উইকেট হারালো নিউজিল্যান্ড।

ফিরেই উইকেট নিলেন তানজিম

প্রথম স্পেলে ৫ ওভারে ৯ রান দিয়ে ২ উইকেট নেন তানজিম হাসান সাকিব। তার বোলিংয়ে শুরুটা দারুণ হয় বাংলাদেশের। নিউজিল্যান্ড ওই চাপ থেকে উদ্ধার হতে পারলেও শরিফুল ইসলাম টানা তিন ওভারে ৩ উইকেট নেন। আর ২৩তম ওভারে দ্বিতীয় স্পেলে বল হাতে নিয়েই টম ব্লান্ডেলকে ৪ রানে মেহেদী হাসান মিরাজের ক্যাচ বানান তানজিম। ওভারটিতে কোনও রান দেননি ডানহাতি পেসার। ৭০ রানে ৬ উইকেট হারালো নিউজিল্যান্ড।

শরিফুলের তৃতীয় শিকার চাপম্যান

২ উইকেটে ৫৮ রান করা নিউজিল্যান্ড ৬৩ রানে হারালো ৫ উইকেট! শরিফুল ইসলাম তার টানা দুই ওভারে টম ল্যাথাম, উইল ইয়াংকে ফেরান। নিউজিল্যান্ড ৫ রানের ব্যবধানে তার কাছে তৃতীয় উইকেট হারালো। মার্ক চাপম্যানকে (২) বোল্ড করেছেন বাংলাদেশি পেসার।

প্রথম স্পেলে চার ওভারে ১৬ রান দিয়ে উইকেটশূন্য ছিলেন শরিফুল। দ্বিতীয় দফায় বল হাতে নিয়ে বিপজ্জনক হয়ে উঠলেন। পরের তিন ওভারে মাত্র ৬ রান দিয়েছেন, উইকেট তিনটি।

শরিফুলের দ্বিতীয় আঘাত

বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে করেছিলেন সেঞ্চুরি, দ্বিতীয়টিতে অল্পের জন্য তিন অঙ্কের ঘরে যেতে পারেননি। শনিবার নেপিয়ারে ত্রিশও ছুঁতে পারলেন না উইল ইয়াং। নিউজিল্যান্ডের ওপেনার ৪৩ বলে ৩ চারে ২৬ রানে থামলেন। মেহেদী হাসান মিরাজ তার ক্যাচ নেন। ৬১ রানে চার উইকেট হারালো নিউজিল্যান্ড। এটি শরিফুলের ৫০তম ওয়ানডে উইকেট।

শরিফুলের বলে বোল্ড ল্যাথাম

২২ রানে ২ উইকেট হারানোর পর উইল ইয়াং ও টম ল্যাথাম প্রতিরোধ গড়েন। ক্রিজে লম্বা সময় থাকলেও জুটি বড় হলো না। শরিফুল ইসলামের বলে ল্যাথাম বোল্ড হন। ৫৫ বলে গড়া ৩৬ রানের জুটি ভেঙে গেলো। ৩৪ বলে ২১ রান করেন অধিনায়ক। ৫৮ রানে নিউজিল্যান্ডের তৃতীয় উইকেট পড়লো।

তানজিমের বলে পাওয়ার প্লেতে বাংলাদেশের দাপট

পাওয়ার প্লেতে নিউজিল্যান্ড ২ উইকেট হারিয়ে করেছে মাত্র ২৭ রান। বাংলাদেশের পেসার তানজিম হাসান সাকিবের নৈপুণ্যে তারা সুবিধা করতে পারেনি। তিনি ৫ ওভারে ৯ রান দিয়ে দুটো উইকেটই শিকার করেছেন। ১ ওভার বল করে ২ রান দেন মোস্তাফিজুর রহমান। ৪ ওভারে ১৬ রান দিয়ে খরুচে ছিলেন শরিফুল ইসলাম।

তানজিমের দ্বিতীয় শিকার নিকোলস

উদ্বোধনী জুটি ভাঙার পর তানজিম হাসান সাকিব তার পরের ওভারে রান দেননি। তার পরের ওভারে হেনরি নিকোলসকে মিড অনে নাজমুল হোসেন শান্তর ক্যাচ বানান এই পেসার। ১২ বল খেলে ১ রান করেন কিউই ব্যাটার। ২২ রানে ২ উইকেট হারালো নিউজিল্যান্ড।  

তানজিমের বলে ভাঙলো উদ্বোধনী জুটি

নেপিয়ারের পিচে বলের মুভমেন্ট বিপদজনক হয়ে ‍উঠছিল। তাতে নিউজিল্যান্ডের দুই ওপেনারের মধ্যে কিছুটা অস্বস্তি ছিল স্পষ্ট। অবশেষে ভেঙে গেলো উদ্বোধনী জুটি। তানজিম হাসান সাকিব নিজের দ্বিতীয় ও ইনিংসের চতুর্থ ওভারে রাচিন রবীন্দ্রকে আউট করেন। মুশফিকুর রহিমের হাতে সহজ ক্যাচ হন, নিউজিল্যান্ড ব্যাটার ১২ বলে করেন ৮ রান। ‘১৬ রানে প্রথম উইকেট পড়লো।

টস জিতে বোলিংয়ে বাংলাদেশ

নিউজিল্যান্ডের কাছে হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর মিশন। একইসঙ্গে দেশটিতে সাদা বলের প্রথম ম্যাচ জয়ের স্বপ্ন। শনিবার নেপিয়ারে তৃতীয় ওয়ানডেতে টসে জিতে বোলিং নিয়েছে বাংলাদেশ। একাদশে একটি পরিবর্তন এনেছে তারা, হাসান মাহমুদের বদলে মোস্তাফিজুর রহমান ঢুকেছেন। নিউজিল্যান্ড আগের একাদশ নিয়ে মাঠে নামছে।  

বাংলাদেশ একাদশ: সৌম্য সরকার, এনামুল হক বিজয়, নাজমুল হোসেন শান্ত (অধিনায়ক), লিটন দাস, তাওহীদ হৃদয়, মুশফিকুর রহিম (উইকেটকিপার), মেহেদী হাসান মিরাজ, তানজিম হাসান সাকিব, রিশাদ হোসেন, শরিফুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান।

নিউজিল্যান্ড একাদশ: উইল ইয়াং, রাচিন রবীন্দ্র, হেনরি নিকোলস, টম ল্যাথাম (অধিনায়ক), টম ব্লান্ডেল (উইকেটকিপার), মার্ক চাপম্যান, জশ ক্লার্কসন, অ্যাডাম মিলনে, আদিত্য অশোক, জ্যাকব ডাফি, উইলিয়াম ও’রোর্কে।

সান্ত্বনার জয় পাওয়ার খোঁজে বাংলাদেশ

নিউজিল্যান্ডের দ্বিতীয় সারির দলের বিপক্ষে টানা দুই ওয়ানডে হেরে সিরিজ খুইয়েছে বাংলাদেশ। নেপিয়ারে অনুষ্ঠেয় সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতে বাংলাদেশ কি পারবে সিরিজের শেষটায় সান্ত্বনা নিয়ে মাঠ ছাড়তে? পুরোনো পরিসংখ্যান আর চলমান সফরে সফরকারীদের ছন্দ দেখলে সেটার উত্তর দেওয়া কঠিন। বাংলাদেশ সময় শনিবার ভোর ৪টায় শুরু হবে সিরিজের তৃতীয় ম্যাচটি। দেখাবে নাগরিক ও গ্রিন টিভি।