একুশে ফেব্রুয়ারিতে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে: ডিএমপি কমিশনার


Md Firoj প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ১৯, ২০২৪, ২:০৫ অপরাহ্ন /
একুশে ফেব্রুয়ারিতে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে: ডিএমপি কমিশনার

আশ্রয় ডেস্ক

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার হাবিবুর রহমান বলেছেন, ২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা উপলক্ষে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। আগামী ২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস।
আজ সোমবার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে এ কথা বলেন ডিএমপি কমিশনার। এরআগে তিনি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার কেন্দ্রিক ডিএমপি’র গৃহীত নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঘুরে দেখেন।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ডিএমপি কমিশনার বলেন, একুশে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে নিরাপত্তার কোন ঝুঁকি নেই। তারপরও ডিএমপি সব ধরনের হুমকি মাথায় রেখে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।
ডিএমপি কমিশনার বলেন, বাঙালী জাতীয়তাবাদের উন্মেষ ঘটেছিল ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে, ৪৮ থেকে ৫২ এই দীর্ঘ সময় ব্যাপি যে ভাষার জন্য আন্দোলন, সেই আন্দোলন এবং ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারীর স্মৃতিকে সংরক্ষণ করে, শ্রদ্ধাসহকারে সারা বাঙালী জাতি শহীদ দিবস এবং পৃথিবীর মানুষ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন করে।
তিনি বলেন, ২০ ফেব্রুয়ারি রাত ১২টা থেকে ২১ ফেব্রুয়ারির আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে দুই ভাগে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে। রাত ১২টার পর প্রথম ভাগে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিপরিষদের সদস্য ও বিদেশি কূটনীতিকরা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পন করবেন। পরে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে।
কমিশনার বলেন, শহীদ মিনার ও এর আশপাশের এলাকা সিসিটিভি ক্যামেরার আওতাভুক্ত থাকবে। বোম্ব ডিস্পোজাল টিম, সোয়াট টিম, ফায়ার সার্ভিস, মেডিকেল টিমমহ অন্যান্য টিম স্ট্যান্ডবাই থাকবে। শহীদ মিনার এলাকায় সার্বক্ষণিক তল্লাশি ব্যবস্থা এবং পেট্রলিংয়ের ব্যবস্থা রয়েছে। ড্রোন পেট্রলিং, মোবাইল পেট্রলিং এবং সাইবার পেট্রলিংয়ের মাধ্যমে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।
যারা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাতে আসবেন তাদের সবাইকে শৃঙ্খলা মেনে চলার অনুরোধ জানান ডিএমপি কমিশনার।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. এম মাকসুদুর রহমান, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার, অ্যাডমিন (অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক) এ কে এম হাফিজ আক্তার, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার, ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস্, (অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক) ড. খ. মহিদ উদ্দিন, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (লজিস্টিকস্, ফিন্যান্স অ্যান্ড প্রকিউরমেন্ট) মহা. আশরাফুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মো. মুনিবুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (সিটিটিসি) মো. আসাদুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (গোয়েন্দা) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ, ডিএমপির যুগ্ম ও উপ-পুলিশ কমিশনারগণ ও বিভিন্ন পদমর্যাদার পুলিশ কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।