নবায়নযোগ্য জ্বালানী উৎপাদন ও ব্যবহার বৃদ্ধিতে গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবের


Md Firoj প্রকাশের সময় : মার্চ ৬, ২০২৪, ৪:২৮ অপরাহ্ন /
নবায়নযোগ্য জ্বালানী উৎপাদন ও ব্যবহার বৃদ্ধিতে গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবের

আশ্রয় ডেস্ক

সবুজ ও জলবায়ু সহণশীল উন্নয়নে নবায়নযোগ্য জ্বালানি উৎপাদন ও ব্যবহার বৃদ্ধিতে গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া। তিনি আজ বৈদেশিক অর্থায়নপুষ্ট প্রকল্পসমূহ যথাসময়ে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে অগ্রগতি পর্যালোচনা করার উদ্দেশ্যে গঠিত কমিটির প্রথম সভায় সভাপতির বক্তৃতায় এ কথা বলেন। পরিকল্পনা কমিশনের এনইসি সম্মেলন কক্ষে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় কমিটির সদস্য সচিব, পরিকল্পনা বিভাগের সিনিয়র সচিব সত্যজিত কর্মকারসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগসমূহের সিনিয়র সচিব/সচিবসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
বৈদেশিক অর্থায়নপুষ্ট প্রকল্পসমূহ যথাসময়ে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে মুখ্য সচিবের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের সমন্বয়ে এই উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠন করা হয়।
নবায়নযোগ্য জ্বালানী উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা পূরণের লক্ষ্যে কৃষি জমিতে (যে ফসলী হোক না কেন) কোন সোলার প্লান্ট স্থাপন করা যাবে না মর্মে সভার সভাপতি প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব অনুশাসন প্রদান করে এই বিষয়টি কঠোরভাবে প্রতিপালনের জন্য নির্দেশনা দেন।
সভাপতি সকল সিনিয়র সচিবদের প্রকল্প বাস্তবায়নে নিবিড়ভাবে সংযুক্ত থেকে নিয়মিতভাবে পরিবীক্ষণ করার জন্য অনুরোধ করেন। সর্বোপরি বৈদেশিক অর্থায়নপুষ্ট প্রকল্পসমূহের বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা করার জন্য গঠিত কমিটির সভা নিয়মিত আয়োজনের জন্য অনুরোধ করেন এবং সম্মিলিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে বৈদেশিক অর্থায়নপুষ্ট প্রকল্পসমূহের অর্থছাড় ও বাস্তবায়ন অগ্রগতি বৃদ্ধি পাবে মর্মে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
সভায় ২০২৩-২৪ অর্থবছরের এডিপিভুক্ত ৪৭টি মন্ত্রণালয়/বিভাগের বৈদেশিক অর্থায়নপুষ্ট প্রকল্পসমূহের অর্থ ছাড়/অগ্রগতি পর্যালোচনা, গ্রীন এন্ড ক্লাইমেট রিসাইলেন্ট ডেভেলপমেন্ট (জিসিআরডি) নীতিমালার আলোকে প্রকল্প নির্ধারণ এবং পরিকল্পনা বিভাগ কর্তৃক প্রণীত প্রজেক্ট প্ল্যানিং সিস্টেম (পিপিএস) সফটওয়্যারের মাধ্যমে অনলাইনে প্রকল্প প্রক্রিয়াকরণের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।
প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব, বৈদেশিক অর্থায়নপুষ্ট প্রকল্পসমূহের অর্থছাড় ও বাস্তবায়নের গতি বৃদ্ধির প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান। এডিপি/আরএডিপি অননুমোদিত নতুন প্রকল্প তালিকায় অন্তর্ভুক্তির প্রস্তাব পরিকল্পনা কমিশনে প্রেরণের পূর্বে মন্ত্রণালয়/বিভাগসমূহ যথাযথভাবে পরীক্ষা করে পরিকল্পনা কমিশনে পিপিএস সফটওয়্যারের মাধ্যমে অনলাইনে পাঠানোর বিষয়ে গুরুত্বারোপ করা হয়। এছাড়া, বৈদেশিক অর্থায়ন প্রাপ্তির লক্ষ্যে জিসিআরডি নীতিমালার আলোকে যথাযথ যাচাই করে প্রকল্প পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানোর জন্য সভায় নির্দেশনা প্রদান করা হয়।
২০২৩-২০২৪ অর্থবছরের প্রস্তাবিত আরএডিপিতে প্রকল্প ঋণ/অনুদান খাতে ৪৭টি মন্ত্রণালয়/বিভাগের মধ্যে ১০টি মন্ত্রণালয়/বিভগের অনুকূলে বরাদ্দকৃত অর্থ আরএডিপিতে প্রকল্প ঋণ/অনুদানের মোট বরাদ্দের প্রায় ৮০ শতাংশ। মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলেঅ হলো- বিদ্যুৎ বিভাগ, স্থানীয় সরকার বিভাগ, রেলপথ মন্ত্রণালয়, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, সেতু বিভাগ, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়।
এ মন্ত্রণালয়/বিভাগসমূহের বাস্তবায়ন অগ্রগতির ওপর আরএডিপি বাস্তবায়ন অগ্রগতি বহুলাংশে নির্ভর করে বিধায় এ মন্ত্রণালয়/বিভাগসমূহের বাস্তবায়ন অগ্রগতি নিয়ে সভায় আলোচনা হয়। একইসাথে, ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরের প্রস্তাবিত আরএডিপিতে প্রকল্প ঋণ/অনুদান ব্যবহারে ৩৪ শতাংশের নিচে অগ্রগতিসম্পন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ সমুহের প্রকল্প নিয়ে আলোচনা করা হয়।
এছাড়া, বৈদেশিক অর্থায়নপুষ্ট প্রকল্পসমূহের ধীর অগ্রগতির কারণ/চ্যালেঞ্জ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সভাপতি, পরিপত্র অনুসারে পুল গঠন করে প্রকল্প পরিচালক দ্রুত নিয়োগ ও প্রকল্প ঋণ/অনুদান ব্যবহারসহ সংশ্লিষ্ট প্রয়োজনীয় বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান এবং প্রকল্প অনুমোদনের সময় যুগপৎ ভাবে পিডি নিয়োগের বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন। পাশাপাশি, বৈদেশিক অর্থায়নপুষ্ট প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রকিউরমেন্ট প্রক্রিয়ার প্রতিটি ধাপে উন্নয়ন সহযোগী’র কাছ থেকে সম্মতি/অনাপত্তি গ্রহণের বিষয়টি সহজীকরণের লক্ষ্যে প্রয়োজনে রাষ্ট্রদূতগণসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে নিয়ে সভা করার বিষয়ে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগকে (ইআরডি) অনুরোধ করেন। একইসাথে, লাইন অব ক্রেডিট (এলওসি) এর মাধ্যমে বাস্তবায়িত কিছু প্রকল্পে উদ্ভুত জটিলতা দ্রুত নিরসনের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সভাপতি ইআরডিকে নির্দেশনা প্রদান করেন।