তীব্র শীতে বিপাকে শ্রমজীবী মানুষ


Md Firoj প্রকাশের সময় : জানুয়ারী ১৪, ২০২৪, ১২:২৬ অপরাহ্ন /
তীব্র শীতে বিপাকে শ্রমজীবী মানুষ

হিলি প্রতিনিধি

পৌষ মাসের শেষে দিনাজপুরের হিলিসহ এই অঞ্চলের উপর দিয়ে মৃদ্যু শৈতপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। এতে প্রতিদিনই তাপমাত্রা কমছে। শনিবার দিনাজপুরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৮ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছিল। রবিবার তা আরও কমে সকাল ৯টায় ৮ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। যা আজও দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। এ নিয়ে টানা দ্বিতীয় দিনের মতো দিনাজপুরে কম তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে। এদিকে, তীব্র শীতের কারণে চরম বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া দিনমজুর মানুষজন।

দিনাজপুরের হিলিতে চার দিন ধরে দেখা মিলছে না সূর্যের। আজ রবিবার সেই একই রকম অবস্থা বিরাজ করছে। ভোররাত থেকে সকাল পর্যন্ত বৃষ্টির মতো কুয়াশা ঝরছে। যদিও আজ সকাল ১১টার পর থেকে কুয়াশার মাত্রা কিছুটা কমলেও আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হয়ে রয়েছে। দিনের বেলাতেও যানবাহনগুলোকে হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। এর সঙ্গে হিমেল বাতাস শীতের মাত্রাকে আরও বাড়িয়ে তুলেছে। তীব্র শীতের কারণে কাজে যেতে না পেরে এবং কাজ না পেয়ে বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষজন। তীব্র শীতের মধ্যে জীবিকার তাগিদে বের হলেও আক্রান্ত হচ্ছেন শীতজনিত নানা রোগে। খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন তারা।

হিলি বাজারের ভ্যানচালক আব্দুল লতিফ বলেন, ‘গত কয়েকদিন ধরে খুব ঠান্ডা পড়েছে। তার ওপর প্রচণ্ড কুয়াশা ঝরছে। হিমেল বাতাস বইছে। কুয়াশায় কয়েক হাত দূরের বস্তুও দেখা যাচ্ছে না। এতে ভ্যান চালাতে কষ্ট হচ্ছে। এ ছাড়া প্রচণ্ড ঠান্ডার কারণে ভ্যানের হ্যান্ডেল ঠিকমতো ধরে রাখা যাচ্ছে না। গা-হাত-পা কাঁপছে। এ ছাড়া ঠান্ডার কারণে জ্বর, সর্দি-কাশি লেগেই আছে। মানুষজন ঘর থেকে বের না হওয়ায় যাত্রী কমে গেছে।’

বস্তা সেলাই শ্রমিক নুরুজ্জামান হোসেন বলেন, ‘গত চার-পাঁচ দিন ধরে হিলিতে সূর্যের দেখা মিলছে না। প্রচণ্ড শীতের কারণে আমরা ঠিকমতো কাজকর্ম করতে পারছি না। দোকানদাররাও দেরিতে দোকান খুলছেন। শীতের কারণে কাজকর্ম কমে যাওয়ায় এই বস্তা সেলাই কাজে জড়িত তিন-চারশ’ শ্রমিক মানবেতর জীবন যাপন করছেন।’ 

আবহাওয়া অধিদফতর দিনাজপুরের ইনচার্জ আসাদুজ্জামান বলেন, ‘টানা দ্বিতীয় দিনের মতো আজ দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে দিনাজপুর অঞ্চলে। আজ সকাল ৯টায় দিনাজপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৮ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসের আর্দ্রতা ছিল ৯০ ভাগ। গতকাল দিনাজপুরে তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ৮ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস যা দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল। এই অঞ্চলের ওপর দিয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। আগামী দু-একদিন এমন অবস্থা থাকবে। আগামী ১৮ থেকে ১৯ তারিখের দিকে বৃষ্টিপাত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।’ এর পর থেকে আবহাওয়া পরিষ্কার হয়ে যাবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।