বুয়েট ছাত্র নাহিয়ানের লাশ দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন এলাকাবাসী


Md Firoj প্রকাশের সময় : মার্চ ১, ২০২৪, ১২:৪২ অপরাহ্ন /
বুয়েট ছাত্র নাহিয়ানের লাশ দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন এলাকাবাসী

বরিশাল প্রতিনিধি

ঢাকার বেইলি রোডে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত বুয়েট ছাত্র নাহিয়ান আমিনের লাশ বরিশাল নগরীর নিজ বাসভবনে পৌঁছালে পরিবারের সদস্য থেকে শুরু করে প্রতিবেশীরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। এ সময় বরিশাল জিলা স্কুলের শিক্ষক এবং নাহিয়ানের সহপাঠীদের চোখ ছলছল করছিল।

শুক্রবার (১ মার্চ) দুপুর আড়াইটায় লাশবাহী গাড়ি কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে রাখা হয়। এ সময় জিলা স্কুলের শিক্ষক এবং সহপাঠী ও প্রতিবেশীরা শেষবারের মতো নাহিয়ানের মুখ দেখেন। এরপর লাশবাহী গাড়ি নিয়ে যাওয়া হয় নাহিয়ানের নগরীর বাসভবন পলিটেকনিক রোডে। বাসভবনের সামনে লাশবাহী গাড়ি রাখার পর নাহিয়ানের মা-বাবা, বোন এবং স্বজনরা শেষবারের মতো তাদের সন্তান ও ভাইকে দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন।

নাহিয়ান ওই এলাকার বাকপ্রতিবন্ধী রিয়াজুল আমিনের একমাত্র ছেলে। তার এক মেয়ে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্রী।

২০২০ সালে নাহিয়ান বরিশাল জিলা স্কুল থেকে এসএসসি এবং ২০২২ সালে নটরডেম কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। তিনি বুয়েটের ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলেন।

নিহতের মামাতো ভাই শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. নাভিদ নূর বলেন, ‘আমাদের পরিবার নয়, দেশ একজন মেধাবী শিক্ষার্থীকে হারালো। এ ধরনের অস্বাভাবিক মৃত্যু কারো কাম্য নয়। ওই খাবারের দোকানের সিঁড়ি এবং লিফটে যদি বড় স্পেস থাকতো তাহলে হয়তো অনেক মানুষ বেঁচে যেতো। কিন্তু সে কথা এখন বলে আর লাভ নেই। যে গেছে সে তো আর ফিরে আসবে না।’

নিহতের ভগ্নিপতি মো. বাবু বলেন, ‘রাত ১টায় আমাদের কাছে খবর আসে নাহিয়ানের দুর্ঘটনার বিষয়টি। আমরা বিভিন্ন মাধ্যমে জানতে পারি, নাহিয়ান হোটেলে উপস্থিত হওয়ার ৫ মিনিটের মধ্যে গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়। এ সময় সিলিন্ডারের লোহার অংশ নাহিয়ানের মুখমণ্ডলে আঘাত করে। তার শরীরের কোনও অংশে আগুনের সামান্যতম স্পর্শ লাগেনি। এরপর সেখান থেকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ‍শুক্রবার সকালে লাশের গোসল শেষে বুয়েটে নেওয়া হয়। সেখানে প্রথম জানাজা শেষে লাশ নিয়ে আসা হয় বরিশাল নগরীতে।’

তিনি আরও জানান, শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৫টায় পলিটেকনিক জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে নামাজে জানাজা শেষে মুসলিম গোরস্থানে তাকে দাফন করা হবে। সেখানে দাদা-দাদির পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত হবেন নাহিয়ান।