লক্ষ্মীপুর-৩ সদর আসনে উপনির্বাচনে ভোট গ্রহণ চলছে


Md Firoj প্রকাশের সময় : নভেম্বর ৫, ২০২৩, ৭:৫৫ পূর্বাহ্ন /
লক্ষ্মীপুর-৩ সদর আসনে উপনির্বাচনে ভোট গ্রহণ চলছে

লক্ষ্মীপুর-৩ (সদর) আসনে শূন্যপদে উপনির্বাচনে ব্যালটের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। আজ সকাল ৮ টা থেকে আসনটির ১১৫ কেন্দ্রে একযোগে ভোট গ্রহণ কার্যক্রম শুরু হয়। বিরতিহীন ভাবে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলবে।
নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু, জাতীয় পার্টি (জাপা) সমর্থিত লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী মোহাম্মদ রাকিব হোসেন, জাকের পার্টির প্রার্থী গোলাপ ফুল প্রতীকের মোহাম্মদ শামসুল করিম খোকন ও ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) প্রার্থী আম প্রতীকের সেলিম মাহমুদ প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন।
সকাল ৯ টার দিকে লক্ষ্মীপুর পৌর শহীদ স্মৃতি একাডেমি কেন্দ্রে ভোট দেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু। এ কেন্দ্রে বিপুলসংখ্যক নারী ও পুরুষ ভোটার দেখা যায়।
এদিকে লাঙল প্রতীকের প্রার্থী রাকিব হোসেন পৌর শহরের মজুপুর এলাকার পাবলিক স্কুল ও গোলাপ ফুল প্রতীকের প্রার্থী সামছুল করিম খোকন লক্ষ্মীপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ভোট দেবেন। তবে আম প্রতীকের প্রার্থী সেলিম মাহমুদ কোন কেন্দ্রে ভোট দেবেন তা জানা যায়নি।
রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র জানায়, ৩০ সেপ্টেম্বর লক্ষ্মীপুর-৩ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম শাহজাহান কামাল গত ৩০ সেপ্টেম্বর বার্ধক্যজনিত কারণে
মৃত্যু বরণ করেন। এতে ৪ অক্টোবর নির্বাচন কমিশন আসনটি শূণ্য ঘোষণা করেন। একই সঙ্গে শূন্যপদে উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। ১ টি পৌরসভা ও ১২ টি ইউনিয়নের ১১৫টি ভোটকেন্দ্রে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
শনিবার (৫ নভেম্বর) কেন্দ্রগুলোতে প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি পৌঁছানো হয়। রোববার ভোরে প্রতিটি কেন্দ্রে ব্যালট পেপার পৌঁছানো হয়েছে। নিরাপত্তার লক্ষ্যে ১৬ জন ম্যাজিস্ট্রেট, ৬ প্লাটুন বিজিবি, ৭ প্লাটুন র‌্যাব, ৯৫০ জন পুলিশ ও ১৪৯৫জন আনসার সদস্য নিয়োজিত রয়েছেন। এ আসনে ৪ লাখ ৩ হাজার ৭৪৪ জন ভোটার রয়েছে। এরমধ্যে ২ লাখ ৯ হাজার ৯৬ জন পুরুষ ও ১ লাখ ৯৪ হাজার ৬৪৮ জন নারী ভোটার।
রিটার্নিং কর্মকর্তা ও কুমিল্লা অঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ফরহাদ হোসেন বলেন, ভোরেই প্রত্যেকটি কেন্দ্রে ব্যালট পেপার পৌঁছানো হয়েছে। পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব-বিজিবি ও আনসার সদস্যরা কাজ করছেন। এছাড়া ১৬ জন ম্যাজিস্ট্রেট নির্বাচনী এলাকায় দায়িত্বরত আছেন। সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে সকল প্রস্তুতি রয়েছে। ভোটারারও নির্বিঘ্নে কেন্দ্রে এসে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন বলে আশা করছি।