হত্যার এক যুগ পর একজনের মৃত্যুদণ্ড, অপরজনের যাবজ্জীবন


Md Firoj প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ১৫, ২০২৪, ১:২৮ অপরাহ্ন /
হত্যার এক যুগ পর একজনের মৃত্যুদণ্ড, অপরজনের যাবজ্জীবন

কুমিল্লা প্রতিনিধি

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে এক দিনমজুরকে কুপিয়ে হত্যার দায়ে এক আসামির মৃত্যুদণ্ড ও অপরজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১২টায় কুমিল্লার অতিরিক্ত দায়রা ও জজ পঞ্চম আদালতের বিচারক মোছা. ফরিদা ইয়াসমিন এ রায় দেন।

মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) রফিকুল ইসলাম এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আসামিদের মধ্যে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয় কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার আমানগন্ডা শালুকিয়া গ্রামের মৃত লাল মিয়ার ছেলে মো. লিটনকে (২৮)। যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয় একই উপজেলার ঘোলপাশা গ্রামের মৃত হেলাল মিয়া ছেলে আ. সোবহান তুফানকে। রায় ঘোষণার সময় আ. সোবহান তুফান উপস্থিত থাকলেও অপরজন পলাতক ছিলেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১২ সালের ৩১ জুলাই দিনের বেলায় আসামি লিটনের সঙ্গে জাহাঙ্গীরের বাগবিতণ্ডা হয়। রমজান মাস হওয়াতে একসঙ্গে ইফতার করে কর্মস্থল চৌদ্দগ্রামের আমানগন্ডা মৎস্য প্রকল্পের টিনশেড ঘরে ঘুমাতে আসেন। সঙ্গে আনেন সাহরি খাওয়ার খাবারের বক্সও। কিন্তু সকালে জাহাঙ্গীরের লাশ উদ্ধার করেন স্থানীয়রা। এ সময় তার শরীরে কোদাল ও ধারালো অস্ত্রের চিহ্ন দেখা যায়। এ ঘটনায় নিহত মো. জাহাঙ্গীর হোসেনের ভগ্নিপতি ফুল মিয়া বাদী হয়ে মো. লিটনকে আসামি করে চৌদ্দগ্রাম থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই সুলতান উদ্দিন আসামিদের বিরুদ্ধে ২০১৩ সালের ২৩ জানুয়ারি তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করেন। ২০১৪ সালের ৩ মার্চ চার্জশিট দাখিল করেন। রাষ্ট্রপক্ষে নয় জনের সাক্ষ্য ও যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত এ রায় দেন।

আইনজীবী পিপি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘রায়ে আমরা সন্তুষ্ট। আশা করি হাইকোর্ট এ রায় বহাল রাখবেন।’